57223 zotdhfyqlp 1493721058

কলকাতা: আজ, শিক্ষক দিবসে প্রায় ৮০ জন শিক্ষককে শিক্ষারত্ন প্রদান করা হবে। তার মধ্যে ৬০ জন স্কুল এবং বাকি ২০ জন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের এই সম্মান জানাবেন। কিন্তু এবারের অনুষ্ঠানে কোনও শিক্ষক সংগঠনকে আমন্ত্রণ না জানানোয়, ক্ষোভ তৈরি হয়েছে তাদের মধ্যে। প্রতিবার পড়ুয়াদের উপস্থিতি যত থাকে, সেই হার কমিয়ে এবার বেশি সংখ্যায় শিক্ষকদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কিন্তু তারপরও একাধিক শিক্ষক সংগঠন অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্র না পেয়ে সরকারের সমালোচনায় মুখর হয়েছে।
পশ্চিমবঙ্গ প্রধান শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শ্রীদাম জানা বলেন, গতবার আমন্ত্রণ পেয়েছিলাম। প্রধান শিক্ষক সমিতি আমন্ত্রণ পায়নি, তা কখনও হয়নি। তবে এবার দেখছি কোনও আমন্ত্রণপত্র আসেনি। অথচ এবারই নাকি শিক্ষকদের বাড়তি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। মাধ্যমিক শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী সমিতির সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ মিত্রের বক্তব্য, বহুদিনই এমন আমন্ত্রণপত্র দেওয়ার পাট চুকে গিয়েছে। এবিটিএ’র সাধারণ সম্পাদক সুকুমার পাইনের বক্তব্য, এখনও চিঠি পায়নি। সরকার সৌজন্য জানে না। স্কুল শিক্ষা দপ্তরের তরফে শিক্ষকদের পৃথকভাবে যে চিঠি দিয়ে আমন্ত্রণপত্র পাঠানো হয়েছে, তা আগে হয়নি। বেছে বেছে তৃণমূলপন্থী শিক্ষক সংগঠনের শিক্ষকদেরই তা পাঠানো হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নবকুমার কর্মকারও অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, শিক্ষক দিবসের দিন শিক্ষক সংগঠনগুলিকেই ডাকা হল না, তা ঠিক নয়।
অন্যদিকে, এদিন শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রাইমারি ট্রেন্ড টিচার অ্যাসোসিয়েশন। তাদের বক্তব্য, দু’টি দাবি পেশ করা হয়েছে। এক হল আন্দোলনকারী বঞ্চিত প্রাথমিক শিক্ষকদের সাত দিনের মধ্যে সদর্থক সিদ্ধান্ত জানাতে হবে। দ্বিতীয়, প্রাথমিক শিক্ষকদের সিনিয়রিটি বজায় রেখে পে প্রোটেকশন সহ একাধিক সুবিধা দিতে হবে। সংগঠনের রাজ্য সভাপতি পিন্টু পাড়ুই বলেন, সাত দিনের মধ্যে দাবি না মানা হলে, ১২ সেপ্টেম্বর ফিরিঙ্গি কালীবাড়ি সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ থেকে ধর্মতলা পর্যন্ত মিছিল ও রাজভবন অভিযান কর্মসূচি পালন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.